Tvi Express (alamin's group)
Welcome Guest

Site menu
Welcome Box
Md. Alamin Mahamud
New Year is coming
Social Sites
Main » 2011 » September » 26 » mlm review
0:49 AM
mlm review
মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ের একটি চমৎকার উদাহরণ হিসেবে বলা হয় আপনি একটা পণ্য ব্যবহার করলেন এবং আপনার ভাল লাগলে সেটা অন্যজনকে ব্যবহার করতে উৎসাহিত করলেন। যেমন একটা মুভি আপনার ভাল লাগল। সেটা আপনার বন্ধুকেও দেখতে বললেন। এভাবে পরোক্ষভাবে আপনি মুভিটির প্রচারণা / অ্যাডভার্টাইজ করলেন কিন্তু ঐ মুভির সংগে জড়িত কেউ আপনাকে কোন কমিশন দিলনা। কিন্তু মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ে আপনাকে একটা পণ্যর গুনগত মান অন্যকে প্রচার করলে বিনিময়ে ঐ পণ্যর মালিক আপনাকে একটি নির্দিষ্ট কমিশন দিবে। এতে আপনারও লাভ এবং পণ্য মালিকের লাভ। কিন্তু আপনাকে জোর করে যদি একটা নির্দিষ্ট পণ্য কিনতে বলা হয় এবং ঐ পণ্য ভাল বা খারাপ যাই হোক জোর করে অন্যকে যদি বলতে বলা হয় পণ্যটি ভাল তবে?

সাধারণ বাজারে (ট্রাডিশনাল মার্কেটিং) যেসকল পণ্য বিক্রি হয় তা নিত্যব্যবহার্য যা মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্য থাকার কারণে মানুষ কিনতে পারে, কিন্তু মাল্টিলেভেল মার্কেটিংয়ে এমন সব পণ্য বিক্রি করা হয় যা মানুষের জন্য কম প্রয়োজনীয়, অর্থ্যাৎ না কিনলেও চলে। যেমন বাংলাদেশের একটি এমএলএম প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে প্রচলিত নাইজেলা নামক তেলের কথা বলা যায়। ঐ এমএলএম কোম্পানীতে ডিস্ট্রিবিউটরশীপ পেতে হলে যেকোন একটি পণ্য কিনতে হয়। প্রথমে নাইজেলা নিয়ে বলছি, ঐ প্যাকেজে নাইজেলা তেল দেয়া হয় ১০ বোতল (২৫০ মিলি: সম্ভবত)। ৫ বোতল খাওয়ার এবং ৫ বোতল মাখার। ১০ বোতলের দাম নেয়া হয় ৬০০০/ টাকা। প্রতি বোতলের দাম আসে ছয়শত টাকা করে। বাংলাদেশের মত গরীব দেশে ৬০০ টাকা দিয়ে একটা তেলের বোতল কেনার মতও মানুষের লোকের অভাব নেই। কারণ তাকে ডিস্ট্রিবিউটরশীপ পেতে হবে। আর অপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনে ডিস্ট্রিবিউটরশীপ হতেও কিছু সংখ্যক মানুষ রাজী। কারণ ভবিষ্যতে বিরাট অংকের টাকা আয় করার সুযোগ। দশ বোতল তেলই কিনতে হবে প্রতি বোতল ৬০০ টাকা করে।এ ধরনের অপ্রয়োজনীয় পন্য গ্রাহককে কিনতে বাধ্য করা সুস্পষ্ট প্রতারণা । আর মুহাম্মদ (সা) বলেছেন
"যে প্রতারণা করে সে আমার দলভুক্ত না "(মুসলিম ও তিরমিযি)


এমএলএম ব্যবসা যারা করেন তাদের একটা যুক্তি অহরহ দিতে শুনি বেকারত্বের সমস্যা। সরকার এবং প্রাইভেট কোম্পানীগুলো পর্যাপ্ত চাকরী দিতে পারছেনা। অনেকটা অসহায় হয়েই তারা এমএলএম ব্যবসা শুরু করেছে। আমার কথা হল যে ব্যক্তি বেকারত্বের জ্বালা বুঝে, সে নিশ্চয়ই টাকার মর্মও বুঝবে। কিভাবে তাহলে সে ৬০০ টাকা শুধু মাত্র একটা খাওয়ার / গায়ে মাখার তেলের পিছনে খরছ করে? তাও পাক্কা ১০ বোতল একসাথে কিভাবে কিনে? এ কোন ধরনের বিলাসিতা?

২। আরেকটা বহুল প্রচারিত প্রোডাক্ট হল গাছ বা ট্রি প্লান্টেশান। এখানেও রয়েছে বিশাল ধোকাবাজি। কেউ গাছের চারা কিনে ডিস্ট্রিবিউটর হতে পারে। তবে এক্ষেত্রে তাকে কিনতে হবে ১৫ টি গাছের চারা। মূল্য ৫০০০/ টাকা। একটা চারা গাছের মূল্য পড়ে গড়ে ৩৩৩/ টাকা। চিন্তা করে দেখুন নার্সারীতে সাধারণত একটি গাছের চারা কত হতে পারে? ২০? ৩০? ৪০? ৫০? অথচ মাল্টি লেভেল মার্কেটিংয়ে একটি গাছের চারা কিনতে হচ্ছে তিনশত তেত্রিশ টাকা দিয়ে। তাও আবার ১৫ টা চারা একসাথে কিনতে হবে। এখানেও জোর করে অপ্রয়োজনীয় দ্রব্য কিনতে হচ্ছে। সবচেয়ে বড় কথা উক্ত এমএলএম কোম্পানী বনায়ন করে দেশের পরিবেশ রক্ষা করছে বলে মিথ্যা দাবি করছে। এটাকে কোনমতেই বনায়ন বলা যাবেনা। কারণ এখানে দেশের ও পরিবেশের স্বার্থ নেই, রয়েছে ব্যবসায়িক স্বার্থ। ১২ বছর পরে ঠিকই গাছগুলো কেটে ফেলা হবে। এই বনায়ন জিনিসটা একটা ব্যবসায়িক উসিলা মাত্র যেটা দিয়ে ব্যবসায়িক স্বার্থ হাসিল করা যায়।

৩। আরো কিছু প্রোডাক্ট রয়েছে যেমন ফুট ম্যসেন্জার, হেলথ বড়ি, ইত্যাদি ইত্যাদি। যেসবের ট্রাডিশনাল মার্কেটের প্রাইস সম্পর্কে গ্রাহকের কোন ধারণাই নেই। ফলে ইচ্ছামত দাম সেট করে এগুলো বিক্রি করা হচ্ছে। এখানেও গ্রাহককে অপ্রয়োজনীয় দ্রব্য (যেটার দাম সম্পর্কে গ্রাহক অজ্ঞাত ) কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে।

মুহাম্মদ (সা) বলেছেন :
"পণ্যের মূল্য সম্পর্কে যথাযথ জ্ঞান নেই এমন লোকের কাছে উচ্চ মূল্যে পণ্য বিক্রি করা নিঃসন্দেহে এক প্রকার জুলম।"
(ইবনে রুশদ, আল কাওয়ায়েদ, পৃষ্ঠা ৬০১)

আর হাজার হাজার টাকা খরচ করে যে ব্যক্তি পা মেসেজ করাতে পারে তার মুখে বেকারত্বের কথা মানায় না।

৪। বর্তমানে নতুন একটি গুজব শুনছি। ২০১২ সালের মধ্য বেকার দূর হবে । সবাই ৫০৪০০/ টাকা করে মাসে ইনকাম করবে। ৫০৪০০ টাকা মাসে ফিক্সড ইনকাম করতে হলে একটা পজিশনে যেতে হয় যেটার নাম ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ। কথা হচ্ছে ঐ কোম্পানীতে ওদের ভাষ্যমতে ডিস্ট্রিবিউটর আছে ২৫ লাখ+। কিন্তু বর্তমান ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ ৪০ এর ভিতরে। মানে ২৫ লাখের মাঝখানে ৪০ জন একটা পজিশনে যেতে পেরেছে। আর এই ৪০ সংখ্যায় আসতে সময় লেগেছে ৯ বছর। কিভাবে আর ২ বছরের মধ্য ওরা প্রায় ১ কোটি বেকার দূর করে তাদেরকে ৫০৪০০ টাকা ইনকাম করাবে ? আশা সেতো মরিচীকা!

৫। ট্রাডিশনাল মার্কেটিং সিস্টেমে পণ্য উৎপাদন থেকে ভোক্তা পর্যন্ত আসার মাঝখানে বিভিন্ন শ্রেণীর সুবিধাভোগী থাকেন। যেমন
উৎপাদক → এজেন্ট → পাইকার → খুচরা বিক্রেতা → ভোক্তা।

আর মাল্টিলেভেল মার্কেটিং সিস্টেমের নিয়ম অনুযায়ী পণ্য উৎপাদক থেকে সরাসরি ভোক্তার হাতের নাগালে চলে আসবে। মাঝখানে কোন মধ্যস্থতাকারী থাকতে পারবে না। এভাবে হলে পণ্যর দামও কমে যাওয়ার কথা। কারণ বিভিন্ন মধ্যস্থতাকারীর হস্তক্ষেপে ট্রাডিশনাল মার্কেটিংয়ে দ্রব্যমূল্য যায় যেটা এমএলএমে হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আসলেই কি নেই? তাহলে একটা সাধারণ তেলের বোতলের দাম কেন ৬০০ টাকা হবে? বড়জোর ৩০০ টাকা হতে পারে সর্বোচ্চ। তাহলে বাকী ৩০০ টাকা আমি কাকে দিলাম? এভাবে পাবলিককে ধোকা দেয়া হচ্ছে।

একটি জিনিস খেয়াল করবেন এমএলএম সিস্টেমে মানুষের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিক্রি করা হয়না। কারণ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম মানুষের জানা। তাই এসব জিনিসপত্রে এভাবে ডাকাতি করা সম্ভবনা। যেমন চাল, ডাল, ময়দা ইত্যাদি।

৬। আমরা বাংলাদেশে একটা রীতি দেখি। সেটা হল ভিত্তি প্রস্থর স্থাপনের রীতি। বিভিন্ন সরকারকে বছরে বছরে বিভিন্ন প্রজেক্টের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করতে দেখি কিন্তু সে অনুপাতে প্রজেক্ট গুলোর আলোর মুখ দেখিনা। সেরকম কিছু প্রজেক্ট বাংলাদেশী একটি এমএলএম কোম্পানীও নিয়েছে এবং বরাবরের মত ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনেই সীমিত আছে। (কিছু কিছু ক্ষেত্রে শুধু জায়গার ছবি দেখেই সন্তুষ্ট থাকুন)।


টুইন টাওয়ার /:)



শপিং মল /:)



বিভাগীয় কার্যালয়ের জমি



২২ তলা ভবন =p~



ভিত্তি প্রস্থর :D



সাইনবোর্ড



বড়লোকদের জায়গা



৫০ তলা বিল্ডিং মিরপুরে :-B




৭। আরেকটা পয়েন্ট যেটা মুল পোস্টে দিতে ভুলে গিয়েছি ***

৭। একটি বাংলাদেশী কোম্পানীতে ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ হলে পুরস্কার হিসেবে দেয়া হয় একটা নোয়াহ গাড়ি। কিছুদিন আগে কোম্পানীটির একজন (রাজীব মিত্র) ডায়মন্ড হলে সেলিব্রেশন পার্টির আয়োজন করা হয় চট্টগ্রামের পলোগ্রাউন্ড মাঠে। বিশাল আয়োজন। একটি টিভি চ্যানেল (বৈশাখী টিভি) সরাসরি সম্প্রচার করে অনুষ্ঠান টি।

উপস্থিত অতিথির সংখ্যা ছিল ওদের হিসাবমতে প্রায় ২৫ হাজার। প্রত্যোক অতিথিকে টিকিট কেটে ঢুকতে হয়েছিল। টিকিটের দাম কত হতে পারে আন্দাজ করুনতো? ৫০০ টাকা। ৫০০ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে আরেকজনের সেলিব্রেশনও দেখতে পারেন তথাকথিত এককালের বেকাররা।

আমার কথা হল অতিথি সংখ্যা যদি ২০ হাজার ধরি এবং টিকিট মূল্য ৫০০ হলে মোট আয় হয় এক কোটি টাকা। একটা নোয়াহ গাড়ির দাম কত? ২০ লাখ? অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে সর্বোচ্চ কত খরচ হতে পারে? ৩০ লাখ? বাকি ৫০ লাখ টাকা কই গেল?

এরকম ২ নাম্বারি করে প্রতিটা ডায়মন্ডকে একটা নোয়াহ গাড়ি উপহার দেয়া কি কষ্টসাধ্য কিছু?

সবচেয়ে বড় কথা অতিথিদের টিকিটের টাকা দিয়ে আরেকজনকে গাড়ি কিনে দেয়া, অতিথিদের টাকায় আরেকজনের সেলিব্রেশন দেয়া!



সব শেষে বলব, ব্যবসা করবেন বুঝে শুনে বিনিয়োগ করবেন। কোন লোভ করে নয়। কারণ লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু।

(আমার বন্ধুদের বেশীরভাগই এখন ব্রেন ওয়াশড। আমাদের সার্কেলে একমাত্র আমিই এখনো এমএলএম করিনা। পোস্টটি সেইসব ব্রেন ওয়াশড বন্ধুদের উৎসর্গ কৃত।)

 

সর্বশেষ এডিট : ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ১০:২০

 


৩. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:০০
নিঃসঙ্গ বলেছেন: বদ্দার হাটে একটা খুলছিলো না সেপ SAP নামে ঐটায় কিছু দিন ছিলাম :P ঐখানে চাল ডাল ও বিক্রি করতো। এম এল এম থেকে একটা জিনিষ শিখছি তা হইলো নিজে বিষ খান আর ঐ বিষের তেজ থাকতে থাকতে আরো দুইজনকে সেই বিষ খাওয়াইয়া দেন। আপনার কাম শেষ এই বার যাদেরকে বিষ খাওয়াইলেন তাদেরকে বলেন অন্যদের ধরে ধরে বিষ খাওয়াইতে।

লেখা ভালো হইছে আরিফ।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:০৭

লেখক বলেছেন: এমএলএম আমিও একবার একটা কোম্পানীতে করেছিলাম, অপ্রাপ্তবয়ষ্ক থাকতে। তখন কিছুই বুঝিনি।

আমার মনে হয় এমএলএম যতজন বুঝে করে তারচেয়ে বেশী না বুঝে করে।

৪. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:০২
বিডি আইডল বলেছেন: @ নি:সঙ্গ...চট্রগ্রামের আগ্রাবাদেও একটা ছোট দোকান ছিল...ডেস্টিনির প্রথম ডায়মন্ড মান্নানের..সেখানে তেল-সাবান বিক্রি করতো
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:০৮

লেখক বলেছেন: ডেস্টিনির আগ্রাবাদে একটা অফিস এখনো আছে।

৫. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:০২
অপ্রয়োজন বলেছেন: ভালো বিশ্লেষন ... দেখি এম এল এম আর ডেস্টিনিওয়ালারা কি উত্তর দেয়।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:১০

লেখক বলেছেন: এটা যাস্ট আমার ভিউ। এমএলএম আর ডেস্টিনিওয়ালাদের ভিউ ও নিশ্চয়ই উনাদের মতই হবে।
আর ডেস্টিনিওয়ালারা এসে হয়ত বলবে বিজনেস স্কুল বইটা পড়া না থাকলে পড়ে নিতে। /:)

৬. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:১৪
নিঃসঙ্গ বলেছেন: ১১টাকার লাক্স সাবান ১৩টাকা
২২০ টাকার সয়াবিন তেল ২৫০টাকা
১৬ টাকার আটা ২০ টাকা
১৮ টাকার ময়দা ২২ টাকা

এই রকম রেট ছিলো ওদের ঐখানে জিগাইলে কইতো আপনারে যে পয়েন্ট দেই ঐ গুলা পয়েন্টের টাকা। ৫০০ পয়েন্ট হইলে ২০০০টাকা পাওয়া যাইতো। কাউন্সিলর বানাইতে ৭ দিবের একটা কোর্স ও করাইছিলো তার মধ্যে ৩ দিন গেছিলাম মনে হয়। যত দিন যাইতো ততই নিজেরে বাটপার বাটপার মনে হইতো তাই আর যাওয়া হয়নাই।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৮:৫৬

লেখক বলেছেন: :)

৭. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:৫১
বিডি আইডল বলেছেন: হ্যা বিপ্লব এসোসিয়েটস....আমার গ্রুপ ছিল ওটা...

এমএলএম নিয়ে একটা পোষ্ট দেবার ইচ্ছা আছে সময় পেলে...
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৮:৫৬

লেখক বলেছেন: পোস্টের অপেক্ষায় রইলাম।

৮. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ ভোর ৬:৫৪
স্বপ্নকথক বলেছেন: ২০০৪ এ সদস্য হৈছিলাম ভংচং দেখে...১জনকে সদস্যও করেছিলাম। তারে নিজের পকেট থেকে টাকা ফেরত দিয়ে কৈছিলাম তুই ভাগ, আমিও ভাগি।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৮:৫৮

লেখক বলেছেন: :)

৯. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ সকাল ৭:১৮
রুবাইয়্যাত বলেছেন: ডেসটিনির ব্যবসার বহুমুখিকরণ নীতি এখানেই থেমে নেই, (এক বন্ধু কিছুদিন আগে বোঝানোর চেষ্টা করছিল) তাদের সাম্প্রতিক সময়ের লোভণীয় অফারটি হচ্ছে আপনি তাদের ১০,০০০ টাকার শেয়ার ক্রয়ের মাধ্যমে ডেসটিনির অংশীদারিত্ব গ্রহণ করবেন। প্রথম তিন বছর আপনি আপনার কৃত শেয়ারের লভ্যাংশ ভোগ করতে পারবেন না এবং প্রতি বছরই তা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাবে।

বৃদ্ধি হারটি নিম্নরূপ:
১০,০০০=১ম বছর .............০,০০
২য় বছর............০,০০
৩য় বছর...........৪,০০০
৪র্থ বছর...........৬,০০০
৫ম বছর.......... ১০,০০০
টোটাল ...............পাঁচ বছর পর বিনা পরিশ্রমে ১০,০০০ ইনভেস্টমেন্টের ফসল হিসাবে পাচ্ছেন ১০,০০০।

তারা সেন্ট পার্সেন্ট গ্যারান্টি দিচ্ছে এই টাকা প্রাপ্তির নিশ্চয়তায়। যদিও তা শুরু হয়েছে মাত্র এক বছর হলো এবং তারা সুবিধা ভোগকারী কোন উদাহরণ উপস্থাপন করতে অপারগ।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৮:৫৯

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ। শেয়ারের প্যাকেজটি আমিও দেখেছি।

১০. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ সকাল ৯:১৫
'লেনিন' বলেছেন: এইসব ডেসটিনি, বিজনাস এর পোস্টগুলো স্টিকি করা দরকার। যাতে কিছু আবুল/মফিজ রক্ষা পায়।

আমার পারিবারিক সচেতনতাই আমাকে এই ধরণের ফটকামির প্রতি আকৃষ্ট করতে পারেনি কখনো। এক বন্ধু না বলে বিজনাসের সেমিনারে নিয়ে গিয়েছিলো তাই তার সাথে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছিলাম।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০০

লেখক বলেছেন: এইসব ভুয়া ব্যবসা থেকে সচেতন থাকা দরকার আসলেই।

১১. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ সকাল ৯:৪০
ইসানুর বলেছেন: পোষ্টে যথারীতি প্লাস। আমাকে অনেক ডাষ্টবিনওয়ালারা অনেকদিন ধরে মেম্বার হওয়ার জন্য পিড়াপিড়ি করেছিল। কিন্তু ওদের সম্পর্কে আগেই জানা থাকার কারনে আমাকে বিভ্রান্ত করতে পারে নাই।

তবে আমার দেখা কয়েকজন (চ্যাম্পিয়ন চিটার) কিন্তু ডাষ্টবিন করে লাখপতি/মিলিয়নিয়ার হইছে ।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০২

লেখক বলেছেন: হ্যা, তবে সেই কয়েকজনের সংখ্যা কিন্তু মোট সদস্যর তুলনায় অতি নগন্য। এমএলএম সিস্টেম টাই এমন যে একশ জন আবুল থাকবে আর একজন লাখপতি থাকবে। আপলাইন ডাউনলাইনের ব্যাপার স্যাপার।

১২. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ সকাল ৯:৪৯
আশরাফুল ইসলাম দূর্জয় বলেছেন: ডেস্টিনি একটা মহামারি ছাড়া আর কিছুই না।

ডেস্টিনির বিরুদ্ধে যুক্তিশীল প্রচারনার খুব দরকার।

ধন্যবাদ।

+++ দিলাম।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০৩

লেখক বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ।

১৩. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ সকাল ৯:৫৪
হাসান বলেছেন: পোষ্টটি খুবই ভাল লেগেছে... এমএলএম ব্যবসা আমাকে কখনই প্রভাবিত করতে পারেনি।

মজা ব্যাপার হল লন্ডনেও কারোও কারোও মুখে এই ব্যবসার কথা শুনেছি।

পছন্দের লিস্টে রেখে দিলাম।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০৪

লেখক বলেছেন: এমএলএম একটা আধুনিক ফটকাবাজি ছাড়া আর কিছুই নয়।
ধন্যবাদ।

১৪. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ সকাল ১০:৫০
মাহবুবুল ইসলাম (সুমন) বলেছেন: "comment by: রুবাইয়্যাত বলেছেন: ডেসটিনির ব্যবসার বহুমুখিকরণ নীতি এখানেই থেমে নেই, (এক বন্ধু কিছুদিন আগে বোঝানোর চেষ্টা করছিল) তাদের সাম্প্রতিক সময়ের লোভণীয় অফারটি হচ্ছে আপনি তাদের ১০,০০০ টাকার শেয়ার ক্রয়ের মাধ্যমে ডেসটিনির অংশীদারিত্ব গ্রহণ করবেন। প্রথম তিন বছর আপনি আপনার কৃত শেয়ারের লভ্যাংশ ভোগ করতে পারবেন না এবং প্রতি বছরই তা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাবে।

বৃদ্ধি হারটি নিম্নরূপ:
১০,০০০=১ম বছর .............০,০০
২য় বছর............০,০০
৩য় বছর...........৪,০০০
৪র্থ বছর...........৬,০০০
৫ম বছর.......... ১০,০০০
টোটাল ...............পাঁচ বছর পর বিনা পরিশ্রমে ১০,০০০ ইনভেস্টমেন্টের ফসল হিসাবে পাচ্ছেন ১০,০০০।

তারা সেন্ট পার্সেন্ট গ্যারান্টি দিচ্ছে এই টাকা প্রাপ্তির নিশ্চয়তায়। যদিও তা শুরু হয়েছে মাত্র এক বছর হলো এবং তারা সুবিধা ভোগকারী কোন উদাহরণ উপস্থাপন করতে অপারগ।"
-----------------------------------------

আমার প্রশ্ন হল, ওরা আগে থেকে কিভাবে ঠিক করল যে, কম্পানি এইহারে Profit করবে। Lose ওতো করতে পারে।

এটাতো Fixed deposet হলো....
১৫. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ১২:০০
রুবাইয়্যাত বলেছেন: @মাহবুবুল ইসলাম (সুমন):
হাস্যকর অফার নিঃসন্দেহে। তাদের এই পলিসির বয়স এক বছর এবং তার নুন্যতম প্রফিট লাভের সম্ভাব্যতা তৈরী হবে তিন বছর পর। তারা কোন এক্সাম্পলও সাবমিট করবে না।
তাদের ধান্ধানীতি বোঝা খুব একটা কষ্টসাধ্য হবে না আপনার জন্য যদি আপনি সল্প সময়ে দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী বায়োলজিক্যাল ব্রেসলেট (ইউলিঙ্ক) এর কর্মপন্থা জানেন।

ডেসটিনির ব্যবসায়ীক কুটনীতি যথেষ্টই ঘোলাটে। অধিকাংশই অবোধ্য ঠেকে।
১৬. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ১২:১৮
ধানশালিক বলেছেন: এরচেয়ে মাদক ব্যবসা ভাল ! দুই X( X( X( X( X( X(( X(( X(( X(( নাম্বারী করলে ভাল কইরাই করলাম !
১৭. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ১২:১৮
ধানশালিক বলেছেন: এরচেয়ে মাদক ব্যবসা ভাল ! দুই নাম্বারী করলে ভাল কইরাই করলাম ! X(( X(( X(( X(( X(( X(( X(( X(( X((
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০৫

লেখক বলেছেন: :)

১৮. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ১২:২৫
যীশূ বলেছেন: আমার বন্ধুরাও একবার শুরু করেছিলো। অল্প কিছুদিন কাজ করে তারপর উৎসাহে ভাটা পড়েছে। টাকা পয়সা যা জমা দিয়েছিলো কিছুই আর ফেরত পায়নি, মাঝখান থাকে অনেক টাকা লস। :)

আমি কখনোই এটার পক্ষপাতি ছিলাম না।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০৭

লেখক বলেছেন: টাকা লস সেটা পুষিয়ে নেয়া যায়, কিন্তু যে সময়টা লস হয় এবং মানসিকভাবে যেরকম ক্ষতিগ্রস্থ হয় সেটা পরবর্তী অন্য ব্যবসাতেও প্রভাব ফেলতে পারে।

১৯. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ২:৫১
মোহাইমেন বলেছেন: দারুন বলেছেন, আর বিডি আইডল নতুন পোস্টের কথা বলেছেন। অপেক্ষায় রইলাম। একটা জাগরন সৃষ্টি না হলে সমাজে একটা বিরূপ প্রভাব পড়বে। আমার এলাকায় এক মাছ ব্যবসায়ীর স্ত্রী স্বামীকে না জানিয়ে সোনার গহনা বন্ধক রেখে সদস্য হয়েছিল। পরে গহনা ফেরত পাবার মেয়াদকাল ফুরিয়ে যাচ্ছিল, আর ঐদিকে স্বামী জানলে পরিবারে বিপর্যয় সৃষ্টি হবে। শাখের করাতে ফেসে গিয়েছিল ঐ মহিলা। পরে সবার সহযোগিতায় স্বামীকে জানায় এবং গহনা বন্ধকী ছুটিয়ে আনে। আমার মায়ের কাছ থেকে ডিটেল জানা। এভাবে কত গরীব মানুষও যে প্রতারিত হচ্ছে তার ইয়ত্তা নেই। ধন্যবাদ ভাই, দারুন লেখার জন্য।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০৭

লেখক বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ। আসলেই একটা জাগরণ সৃষ্টি দরকার।

২০. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ দুপুর ২:৫৩
নীড় ~ বলেছেন: পোষ্টটি ভাল লেগেছে... এমএলএম ব্যবসা আমাকে কখনই প্রভাবিত করতে পারেনি।
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০৮

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ নেস্ট ;)

২১. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ বিকাল ৩:০৫
নাজমুল আহমেদ বলেছেন: অনেক কিছু জানা গেল আ২আ ভাই :)
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:০৮

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ নাজমুল ভ্রাতা।

২২. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:১৮
নীল-দর্পণ বলেছেন: জারা এসব করে তারা তো চরম ডেজঞারাস!! ওদের সামনে নরলাম কথা বললে সাটা ডেসটিনি পর্যন্ত নিয়ে যায়!! আর ওরা বলে পড়া-শুনা করে চাকরী পাওয়া যায় না!!
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:২১

লেখক বলেছেন: ওদের ট্রেনিংয়ের কিছু ভিডিও দেখার সৌভাগ্য / দুর্ভাগ্য হয়েছে। চরম বিরক্তিকর।

২৩. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:২৫
আরিফ থেকে আনা বলেছেন: আরেকটা পয়েন্ট যেটা মুল পোস্টে দিতে ভুলে গিয়েছি ***

৭। একটি বাংলাদেশী কোম্পানীতে ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ হলে পুরস্কার হিসেবে দেয়া হয় একটা নোয়াহ গাড়ি। কিছুদিন আগে কোম্পানীটির একজন (রাজীব মিত্র) ডায়মন্ড হলে সেলিব্রেশন পার্টির আয়োজন করা হয় চট্টগ্রামের পলোগ্রাউন্ড মাঠে। বিশাল আয়োজন। একটি টিভি চ্যানেল (বৈশাখী টিভি) সরাসরি সম্প্রচার করে অনুষ্ঠান টি।

উপস্থিত অতিথির সংখ্যা ছিল ওদের হিসাবমতে প্রায় ২৫ হাজার। প্রত্যোক অতিথিকে টিকিট কেটে ঢুকতে হয়েছিল। টিকিটের দাম কত হতে পারে আন্দাজ করুনতো? ৫০০ টাকা। ৫০০ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে আরেকজনের সেলিব্রেশনও দেখতে পারেন তথাকথিত এককালের বেকাররা।

আমার কথা হল অতিথি সংখ্যা যদি ২০ হাজার ধরি এবং টিকিট মূল্য ৫০০ হলে মোট আয় হয় এক কোটি টাকা। একটা নোয়াহ গাড়ির দাম কত? ২০ লাখ? অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে সর্বোচ্চ কত খরচ হতে পারে? ৩০ লাখ? বাকি ৫০ লাখ টাকা কই গেল?

এরকম ২ নাম্বারি করে প্রতিটা ডায়মন্ডকে একটা নোয়াহ গাড়ি উপহার দেয়া কি কষ্টসাধ্য কিছু?

সবচেয়ে বড় কথা অতিথিদের টিকিটের টাকা দিয়ে আরেকজনকে গাড়ি কিনে দেয়া, অতিথিদের টাকায় আরেকজনের সেলিব্রেশন দেয়া!

২৪. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ৯:৫৩
অরণ্যচারী বলেছেন: +++++++++++++++++++
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ১০:২২

লেখক বলেছেন: ধন্যবাদ

২৫. ৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ১০:৩৪
রাজসোহান বলেছেন: হুন বিশাল বিস্লেষণ

মজা পাইলাম
৩১ শে জানুয়ারি, ২০১০ রাত ১০:৪০

লেখক বলেছেন: আপনি তো ডেসটিনি করেন। এই পোস্ট পড়ে আপনার বক্তব্য কি?

২৬. ০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ১২:২৭
আবু মোশাররফ রাসেল বলেছেন: আমার এক বন্ধু আমাকে কোন কিছু না জানিয়েই ডেসটিনির সেমিনারে নিয়ে গেল। সেমিনার শুনে মনে হলো এই বুঝি কোটিপতি হয়ে গেলাম, আর আছে ভবিষ্যতের নিশ্চয়তা। কিন্তু আমাকে সদস্য করার জন্য কয়েকটি এসোসিয়েটসের টানাটানি দেখেই তাদের প্রকৃত বিষয় বুঝতে সক্ষম হয়। এক ভয়াবহ অবস্থারে ভাই। এই কর্পোরেট পৃথিবী কী যে হবে?
০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ১:২২

লেখক বলেছেন: টানাটানির কথা শুনে =p~ =p~

২৭. ০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ১২:৪৪
রাজসোহান বলেছেন: হাহাহাহাহাহাহাহাহাহাহা

ভাইরে আমি কাজের জায়গায় কাজ করি ব্লগে কাজ করি না.........

এখানে আমি আসি মজা করার জন্য আর মাঝে মাঝে আপনাদের এই সব গবেষণা চরম উপভোগ করি......

তবে আমি সবচেয়ে বেশি মজা পাইছি আপনার ২৩নাম্বার কমেন্ট পড়ে =p~ =p~ =p~

আর ১৪ নাম্বার কমেন্টের ব্যাপারে বলছি আপনি যেভাবে ব্যাখ্যা করেছেন তা সম্পূণ ভুল......এটা এরকম হতে পারে যে,হয় আপনার বুঝায় ভুল অথবা যিনি আপনাকে বুঝিয়েছে তিনি সৎ নন......

যাই হোক ভাই কাজের ফাকে আপনারা ব্যাফুক আনন্দ দেন আর এই জন্যই এই ব্লগ এত ভাললাগে হাহাহাহা

আরিফ ভাই এই প্রথম আমি এত বড় কমেন্ট দিলাম
আপনি আমার হাত ব্যাথা করে দিছেন......আপনারে মাইনাচ ;) ;) ;)
০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ১:২৮

লেখক বলেছেন: তবে আমি সবচেয়ে বেশি মজা পাইছি আপনার ২৩নাম্বার কমেন্ট পড়ে

২৩ নং কমেন্টে কোথাও ভুল আছে বলতে পারবেন?
ব্রেন ওয়াশড হয়ে গেলে মজা পাওয়াই স্বাভাবিক। কোন ব্রেন ওয়াশড জঙ্গীকে যদি বলা হয় পরকাল বলতে কিছুই নেই তবে সে যেমন মজা পাবে তেমনি আপনিও শুধু ২৩ নং কমেন্ট নয়, পুরো ৭ টি পয়েন্টেই মজা কেন পেলেন না সেটিই অবাক বিষয়।

আর ১৪ নাম্বার কমেন্টের ব্যাপারে বলছি আপনি যেভাবে ব্যাখ্যা করেছেন তা সম্পূণ ভুল.

আপনার ব্রেন মনে হয় কাজ করছে না, কারণ ১৪ নং মন্তব্য আমার নয়। জনৈক ব্লগার মাহবুবুল ইসলাম (সুমন) এর। /:)

আপনার কাজের উন্নতি প্রার্থনা করি। আশা করেছিলাম পয়েন্টের বিপরীতে পয়েন্ট দেখাবেন। দেননি সেজন্য আফসোস নেই, অন্তত আপনাকে মজা তো দিতে পেরেছি। অন্যদের মত বিজনেস স্কুল পড়ে আপনার সাথে কথা বলতে বলেন নি এতেই শুকরিয়া।


৩১. ০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ২:৫৫

৩২. ০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ১১:২৬
আমিনুল ইসলাম বলেছেন: ছিক। এমএলএম??? ও নাম মুখেও আনবেন না (অন্তত আমার সামনে না)।
০৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১০ সকাল ১১:২২

লেখক বলেছেন: :)

৩৩. ০৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ২:৫৮
কঠিনলজিক বলেছেন: হেল্প চাই । একটা USA ভিত্তিক কোম্পানীর মিডিল ইস্ট ইনচার্জ এর সাথে দেখা হোল । তারা একটা MLM কোম্পানী করছে http://www.acninc.com/acn/us/ এর আদলে যার এক জন মেজর শেয়ার হোল্ডার Donald Trump (one of world 10 top richest person ) আমাকে দেওয়া তার প্রস্তাবনা নিপ্নরূপ।

ASIA and MIDDEL EAST তারা শুরু করে নাই
#১ টপ ২০ পারসন মাসিক ২০,০০০-৫০,০০০ ডলার পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবে।
#২ বিসনেস একাউন্ট এক কালিন ৫০০ ডলার
#৩ প্রতি মাসে ২৫ ডলার দিলে ফ্রি সারা মাস পৃথিবির যে কোন প্রান্তে আনলিমিটেড ভিডিও কল করা যাবে ( জোড়া সেট বিনা মুল্যে দিবে )
#৪ প্রিলোডেড কার্ড বা ব্যাংক আ্যকাওন্টে টাকা রিসিভ করা যাবে ।
আরো ওনেক কথা । জিবনে MLM করি নাই তবে ওর প্রস্তাব সম্ভবনাময় এবং আকর্ষনী্য় মনে হল ।

MLM এ অভিগ্য্ কারো পরামর্শ খুব দরকার ।

আপনার ই মেইল এড এ সরাসরি যোগাযোগে আগ্রহী । আমাকে জবাব দিতে হবে ২০ এ ফেব্রুয়ারীর মধ্যে ।

০৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১০ সকাল ১১:২১

লেখক বলেছেন: এটাও পিরামিড ব্যবসা। এটা সম্পর্কে বিস্তারিত জানিনা। গুগলে ACN Mlm fraud লিখে সার্চ করলে প্রচুর লেখা পাবেন।

একটা প্যারা দেখেন।-

The income has two sources: phone/internet bills and new reps.

First source is small. The market is very competitive (many different providers) and the percentage of revenue is small (less than 2% usually). How many customers must you have to earn $100 monthly, if you get 1% or 2% of their phone bills? Do the math. if you have 40 customers, with 30$ monthly bill each, that sums up to $1200 in bills. 2% of it would be $24. Monthly.
Some may say - but there is also income form downline, from levels below, up to the 7th level. Well, theoretically it is. In practice, sometimes it is not. It is no easy to build structure 7 levels deep and maintain it, especially when drop out rate is high. This income is low but residual (if you keep the downline and not let it vanish due to drop out rate)

Second source is big. But it resembles pyramid scheme. This income is high but not residual.

There are also some Customer Acquisition Bonuses (CABs) - if you are on the level of "Executive Team Trainer or higher" - so you need to rise in the organisation first.

To sum up - high recruiting bonuses, small residuals income. The icome thus depends on how many reps you recruit.

Expenses: about $499 (may change in time and be different in different countries) fee to join. Annual renwal fee (about $100-$150). Monthly fees - a few dollars. All is about $230 yearly ($499 more in first year). How many customers do you need to brek even?


৪৫. ১৫ ই মার্চ, ২০১০ রাত ১০:৪৩
ট্যামটেমি বলেছেন: বাই, কি আর কমু, লজ্জা শরমের মাতা খাইয়া কই, আমিও অইছিলাম নিউওয়ে নামক এম এল এম কোম্পানীর সদস্য, যহন ডুকছিলাম মনে অইছিল এই বুজি কাড়ি বাড়ির মালিক বইন্যা গেলাম আর কি। দুইডা বছর কামাল আতাতুর্ক এর এ আর টাওয়ারে মারা দিয়া হাজার বিশেক ট্যাকা খোয়াইয়া ঠেইকা শিখছি কী মাল এই এমএলএম (মলম)। এইডা মলম পাট্টির মলমের চেয়েও বড় মলম, নিজের পাছা নিজে কাইচি দিয়া ফারলে য অয়, সরি ভাই এট্টু বেসামাল অইয়া গেছিলাম্। যে হালারা আমারে লোভ দেহাইছলো হেরাও ভাগছে। যারা নিউওয়ের কাছাকাছি গেছেন তারা সালাউদ্দিনের নাম জানেন। হে বেডাও ভাগছে।
০৩ রা এপ্রিল, ২০১০ রাত ১:১৫

লেখক বলেছেন: এমএলএম(মলম) নামটা সুন্দর



 

Views: 649 | Added by: Alamin | Rating: 0.0/0
Total comments: 0
Name *:
Email *:
Code *:
our poll
Rate my site
Total of answers: 12
Calendar
«  September 2011  »
SuMoTuWeThFrSa
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930
Today is
Now the season is
Statistics

Total online: 1
Guests: 1
Users: 0